নবাবগঞ্জে নিয়োগের ঘটনায় চাঁদা দাবীর অপরাধে ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি আটকনিজস্ব প্রতিনিধিঃ সোমবার দিনাজপুরের নবাবগঞ্জে নবীনগঞ্জ দ্বি-মূখী উচ্চ বিদ্যালয়ের গ্রন্থাগারিক ও নিম্নমান সরকারী কাম-কম্পিউটার অপারেটর নিয়োগের ঘটনায় বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মোঃ আঃ জলিল মিয়া কর্তৃক ২ জন সহকারীর নিকট থেকে ৪ লাখ টাকা চাঁদা দাবীর অপরাধে থানায় দায়ের করা মামলায় পুলিশ ওই সভাপতিকে আটক করে জেল হাজতে প্রেরন করেছে।

মামলার বাদী গ্রন্থাগারিক সহকারী মোঃ তাজেদুল ইসলাম অভিযোগ করে জানান- গত ১৯.০৯.১৫ ইং তারিখের তাকে ও রহিমাপুর গ্রামের সাদেকুল ইসলামের মেয়ে সাজিনা আক্তার’কে নিম্নমান সহকারী কাম-কম্পিউটার অপারেটর নিয়োগের জন্য বিজ্ঞপ্তি জারী করে। বিধি অনুযায়ী তারা আবেদন করে। এরপর নিয়োগ বোর্ডের মাধ্যমে লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষায় কৃতকার্য হয় তারা।

এদিকে নিম্নমান সহকারী কাম-কম্পিউটার অপারেটর পদে সভাপতির পুত্রবধূ লাবনী আক্তার সেও আবেদন করে। নিয়োগ বোর্ডের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী লাবনী নিয়োগ থেকে বঞ্চিত হয়। একে কেন্দ্র করে লাবনী আদালতে মামলা করে। অপরদিকে নিয়োগ হওয়া ওই দু’জনকে বৈধ হিসেবে সভাপতি যোগদান না করে বিভিন্নভাবে দু’জনের নিকট থেকে ৪ লাখ টাকার চাঁদা দাবী করে। এও বলে তার দাবীর টাকা দিতে ব্যর্থ হলে ওই দু’জনের চাকরীর সাধ মিটিয়ে দিবে।

চাঁদা দাবীর অপরাধে গ্রন্থাগারিক ও সহকারী নবাবগঞ্জ থানায় বাদী হয়ে ৩৮৫ দন্ডবিধি ধারার অপরাধে মামলা রুজু করে। এ বিষয়ে নবাবগঞ্জ থানায় যোগাযোগ করা হলে অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ ইসমাইল হোসেন জানান- ওই মামলায় বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতিকে আটক করে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

এ ঘটনায় নবীনগঞ্জ দ্বি-মূখী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ দবিরুল ইসলামের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান- ডোনেশনের নামে সভাপতি ওই দুজনের কাছ থেকে চাঁদা দাবী করছে এমন অভিযোগ করেছিল তারা। তিনি আরও দাবী করেন উপজেলার ৯নং কুশদহ ইউনিয়নের তার বিদ্যালয়টি শিক্ষার গুণগত মান সম্পন্ন। নিয়োগের ঘটনাকে কেন্দ্র করেই কিছু অপ্রীতিকর ঘটনার জন্য তিনি দুঃখ প্রকাশ করেন।

বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা অভিযোগ করে জানান- শিক্ষার মান ভাল রয়েছে, ম্যানেজিং কমিটি নিয়োগের ঘটনাকে কেন্দ্র করে আমাদের বিদ্যালয়ে পরিবেশের বিকৃতি ঘটছে। এ ঘটনায় নবাবগঞ্জ উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা দীপক কুমার বণিক জানান- স্বচ্ছ নিয়োগ বোর্ডের মাধ্যমে লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষা নেয়া হয়েছে।

এদিকে সভাপতির পুত্রবধূ লাবনী জানান- অস্বচ্ছ নিয়োগ বোর্ডের কারণে তার চাকুরী না হওয়ায় আদালতে মামলা করেছি। আটক সভাপতির ছেলে নূরনবী অভিযোগ করে জানান- ওই দুজনের নিয়োগে স্বাক্ষর না করার অপরাধে তার বাবাকে চাঁদাবাজীর মামলায় জড়ানো হয়েছে।

এলাকার অভিভাবক ও সচেতন মহলের দাবী সঠিক ও নীরপেক্ষভাবে তদন্ত করে আদালতে প্রতিবেদন দেয়ার জন্য পুলিশ প্রশাসন উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য