অসমে আইইডি বিস্ফোরণে নিহত ২, সন্দেহ আলফার দিকেভারতের অসমে এক শক্তিশালী আইইডি (ইম্প্রোভাইসড এক্সপ্লোসিভ ডিভাইস) বিস্ফোরণে ২ জন নিহত এবং চার পুলিশসহ ২১ জন আহত হয়েছে। আহত সবাইকে নিকটবর্তী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এদের মধ্যে ১৪ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

নিহতরা হলেন- বাপন সাহা এবং অজিত দত্ত। বাপন সাহা সারা অসম বাঙালি যুব ছাত্র ফেডারেশনের দুধনৈয়ের কর্মকর্তা ছিলেন। অন্যদিকে, অজিত দত্ত ছিলেন বিজেপি কর্মী।

সোমবার অসমে বিধানসভা নির্বাচনের প্রথম দিনেই এরকম বিস্ফোরণ ঘটায় স্থানীয় মানুষজনের মধ্যে তীব্র আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। সংশ্লিষ্ট এলাকায় কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।

গতকাল সোমবার রাত সাড়ে সাতটা নাগাদ গোয়ালপাড়া জেলার দুধনৈতে বিজেপি’র অস্থায়ী নির্বাচনি দফতরের পাশে এবং স্থানীয় থানার নিকটবর্তী স্থানে একটি মোটর সাইকেলে বিস্ফোরণ ঘটলে এই হতাহতের ঘটনা ঘটে। অন্য একটি সূত্রে প্রকাশ, বিস্ফোরকটি একটি ডাস্টবিনে রাখা ছিল। আচমকা বিস্ফোরণের ফলে আশেপাশের বেশ কিছু দোকানপাট ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

গোয়ালপাড়ার পুলিশ সুপার নিতুল গগৈ বলেন, ‘প্রাথমিক তদন্তে মনে হচ্ছে এই হামলার নেপথ্যে আলফার হাত রয়েছে। বিস্ফোরণের মাধ্যমে পুলিশ এবং সাধারণ মানুষকে টার্গেট করা হয়েছিল। এ ঘটনায় ২ জনের মৃত্যু হয়েছে এবং ২১ জন আহত হয়েছে।’

এদিকে, বোমা বিস্ফোরণের নিন্দা করে সারা অসম বাঙালি যুব-ছাত্র ফেডারেশনের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, ভোটের মুখে আলফা স্বাধীন হিন্দু বাঙালি নিধনের ষড়যন্ত্রে নেমেছে। বোমা বিস্ফোরণের নিন্দা করা হয়েছে কংগ্রেস, এআইইউডিএফ, বিজেপি এবং অগপ’র পক্ষ থেকে। সন্ত্রাসীরা নির্বাচনের মুখে নাশকতা চালাতে পারে বলে আগেই গোয়েন্দা সংস্থার পক্ষ থেকে রাজ্য পুলিশ প্রশাসনকে সতর্ক করা হয়েছিল। নিরাপত্তা ব্যবস্থার ব্যাপক কড়াকড়ি সত্ত্বেও সন্ত্রাসীরা থানার নিকটবর্তী এলাকায় বিস্ফোরণ ঘটিয়ে কার্যত পুলিশ প্রশাসনকে বুড়ো আঙুল দেখিয়েছে বলে বিশ্লেষকরা মনে করছেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য