সাহস পেয়েছেন প্রসূনবিনোদন ডেক্সঃ অভিনয় জীবন খুব বেশি দিনের না হলেও অল্প সময়ে কিছু ভালো নির্মাতার কাজ করে প্রশংসা পেয়েছেন লাক্সতারকা প্রসূন আজাদ। টানা তিন মাস অস্ট্রেলিয়ায় থাকার পর আজ দেশের উদ্দেশে রওনা দিচ্ছেন এ অভিনেত্রী। চলচ্চিত্রে অভিনয়ের পাশাপাশি নিজেই একটি ছবি বানানোর ঘোষণা দিয়েছিলেন প্রসূন। আর সেটা নিয়েই এতদিন বেশ কিছু কাজ অস্ট্রেলিয়ায় করেছেন।

প্রসূন আজাদ মুঠোফোনে সংবাদমাধ্যেমকে বলেন, আমি অস্ট্রেলিয়ার সিডনি থেকে আজই দেশের উদ্দেশে রওনা করছি। দীর্ঘ তিন মাস পর দেশে  ফিরছি, খুবই ভালো লাগছে। অস্ট্রেলিয়ায় আমি ও আমার হবু বর মোহাইমিন সান দুজনে মিলে একটি ছবি নির্মাণেরও চেষ্টা করেছি। এর নাম ‘কুহেলিকা’। ছবিটির চিত্রনাট্যকার আহাদুর রহমান। ইউটিউবে ছবিটি প্রথমে মুক্তি দেয়ার ইচ্ছে রয়েছে।

প্রসূন বলেন, ছবি নির্মাণের ক্ষেত্রে একজন নির্মাতার প্রস্তুতির দরকার পড়ে। আমি মনে করি আমি এখন অনেকটা প্রস্তুত। এত দিন পর্যন্ত অভিনয়ের মাধ্যমে যে অভিজ্ঞতা অর্জন করেছি সেটাই নির্মাণের ক্ষেত্রে কাজে লাগবে। আমি মনে করি, যে পর্দার সামনে কাজ করতে পারে সে পেছনেও করতে পারবে। আর নির্মাণের সঙ্গে যুক্ত হওয়ার ভাবনাটা আগে থেকেই ছিল। কিন্তু সাহস ছিল না। এবার সেই সাহস পেয়েছি।

দর্শকের জন্য তার পরিচালিত প্রথম ছবিটি ‘সুপার আর্টিস্টিক’ ও ‘সুপার কমার্শিয়াল’ হবে বলেও জানিয়েছেন প্রসূন। দুই ঘণ্টার এ ছবিটি ডিজিটাল ফর্মেটে দর্শকরা দেখতে পাবেন। এদিকে, প্রসূন আজাদ অভিনীত ‘অচেনা হৃদয়’ ও ‘সর্বনাশা ইয়াবা’ নামে দুটি ছবি সবশেষ মুক্তি পায়। এছাড়া আলভী আহমেদের ‘ইউটার্ন’ ছবির আইটেম গানে পারফরম করেন তিনি। এরপর ‘মৃত্যুপুরী’ নামে একটি ছবিতে অভিনয় করেন প্রসূন।

এখানে তাকে দর্শক নৈশক্লাবের একজন নৃত্যশিল্পীর চরিত্রে অভিনয় করতে দেখবেন। অস্ট্রেলিয়ার সিডনির একটি সত্যিকারের নৈশক্লাবেই এ ছবির শুটিং হয়। ক্লাবের সাপ্তাহিক ছুটির দিনে এর দৃশ্যধারণের কাজ শেষ হয়েছে বলে জানিয়েছেন প্রসূন। বিদেশ বাংলা এবং বাজ ফিল্মের ব্যানারে অ্যাকশন ঘরানার এ ছবিটি এ বছরই মুক্তি পাবে বলে জানা যায়। এসব বিষয়ে প্রসূন বলেন, ‘মৃত্যুপুরী’ ছবির বাইরে আশিকুর রহমানের ‘মুসাফির’ নামে একটি ছবি মুক্তি পাচ্ছে এ মাসে।

এ ছবিতে অতিথি চরিত্রে অভিনয় করেছি আমি। আশা করি, দর্শক ছবিটি পছন্দ করবেন। আর এবার ঢাকায় ফিরে আবারও চলচ্চিত্রে অভিনয় শুরু করতে চান প্রসূন। তবে নতুন করে কাজের বিষয়ে তিনি বলেন, আমি এতদিন পারিশ্রমিকের দিকে না তাকিয়ে দর্শককে ভালো কাজ উপহার দেয়ার চেষ্টা করেছি।

এখন থেকে পারিশ্রমিকের পাশাপাশি উপযুক্ত গল্প, চরিত্র দেখে চলচ্চিত্রে কাজ করব। অযথা ছোট কাপড় পরাটা এ দেশের ছবিতে একটা কালচার হয়ে গেছে। এ বিষয়গুলো আগে ভেবে পরে ছবির কাজে হাত দিতে চাই। গল্পের জন্য, চরিত্রের জন্য হলে ঠিক আছে, তবে অযথা নায়িকা হয়ে জীবন কাটাতে চাই না আমি।

সবশেষে নিজের ক্যারিয়ারের বাইরে তার ভালোবাসার মানুষ সানকে নিয়ে জানালেন তিনি। অস্ট্রেলিয়ায় পড়াশোনা করা সানকে কবে বিয়ে করছেন প্রসূন। এমন প্রশ্নের জবাবে তার উত্তর, আমার ভালোবাসার মানুষ সান। অস্ট্রেলিয়াতে পড়াশোনা করছে। চাইলেই যে কোনো দিন বিয়ে করে ফেলতে পারি। তবে আমরা পরিবারের সম্মতি নিয়ে একটু গুছিয়ে বিয়ে করতে চাই।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য