Rangpur Mapকাউনিয়ার শহীদবাগ ইউনিয়নের সাধু গ্রামের কিছু মহৎপ্রাণ শিক্ষানুরাগী ব্যক্তিদের প্রচেষ্টায় ১ একর জমির উপর ২০০০ সালে প্রতিষ্ঠার ১৫ বছরেও এমপি ভূক্ত না হওয়ায় শিক্ষক কর্মচারীরা মানবেতর জীবন যাপন করছে। [ads1]এমপিও ভূক্তির আশায় থাকতে থাকতে অনেক শিক্ষক কর্মচারীর সরকারী চাকুরীর বয়স শেষ হয়ে গেছে। শিক্ষকরা এখনও আশায় বুকবেধে নিয়মিত ছাত্র-ছাত্রীদের পাঠদান অব্যাহত রেখেছেন। বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা প্রধান শিক্ষক মোঃ আব্দুর রাজ্জাক জানান, বিদ্যালয়টি ২০০২ সালে পাঠদানের অনুমতি ও ২০১১ সালে একাডেমিক স্বীকৃতিলাভ করে নিয়মিত উল্লেখ যোগ্য ছাত্র-ছাত্রী জে.এস.সি পরীক্ষায় অংশ নিয়ে ভাল ফলাফল করে আসছে। [ads1]বর্তমানে ১৫০ জন ছাত্র-ছাত্রী অধ্যায়নরত এবং ৮ জন শিক্ষক-শিক্ষীকা কর্মচারী কর্মরত রয়েছে। ২০১৭ সাল পর্যন্ত বিদ্যালয় টি মঞ্জুরী নবায়ন করেছে। উর্দ্ধতন কর্মকর্তারা নিয়মিত বিদ্যালয় টি পরিদর্শন করে থাকেন। কিন্তু দীর্ঘ দিন ধরে শিক্ষক কর্মচারীরা এমপিও ভূক্ত না হওয়ায় খেয়ে না খেয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছেন। তিনি আরো জানান ২০০০ সাল মাওলানা আবু বক্কর সিদ্দিক, মোঃ রফিকুল চৌধুরী, নজরুল বিএসসি, আফজাল মেম্বার এবং বাবুল চৌধুরী সহ এলাকার অনেক শিক্ষানুরাগী ব্যক্তির আর্থিক সহযোগিতা, জমিদান সহ অনেক পরিশ্রম করে অবহেলিত ও শিক্ষা বঞ্চিত অনগ্রসর সাধু গ্রামে শিক্ষার আলো বিস্তারে অনেক আশা আঙ্খাকা নিয়ে বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠা করেন। সরকারী নানা আইনী জটিলতার কারনে একাডেমিক  স্বীকৃতি পেতেও একটু বিলম্ব হয় তবু হাল ছাড়েনি এলাকা বাসী ও শিক্ষক/কর্মচারীরা। বর্তমানে বিদ্যালয়টিতে আসবাবপত্রের টয়লেট সংকট রয়েছে। প্রতিষ্ঠার পর থেকে বিদ্যালয়টি মেরামত ও সংস্কার না করায় বারান্দার কিছু অংশ ভেঙ্গে পড়েছে। [ads1]বিদ্যালয়ের শিক্ষক কর্মচারী দের বসার জন্য একটি স্থায়ী অফিস এবং ছাত্রীদের বিশ্রামাগার প্রয়োজন। বিদ্যালয়ে একটি নলকুফ থাকলেও তাপ্রায় সময় থাকে অকেজো, নানা সমস্যা থাকা সত্বেও বিদ্যালয়ের শিক্ষক কর্মচারীরা শিক্ষা বিস্তারে নিরলশ কাজ করে যাচ্ছে। ছাত্র-ছাত্রীরা সরকারী বই উপবৃত্তি পেয়ে থাকে নিয়মিত। কর্তৃপক্ষ বিদ্যালয়টির দিকে একটি সু-নজর দিলে শিক্ষা বিস্তারে আরো এগিয়ে যাবে এমনটাই আশা করেছেন এলাকাবাসী।
[ads2]

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য