আইসিসি থেকে বেরিয়ে আসবে আফ্রিকা মহাদেশআন্তর্জাতিক ডেস্কঃ আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালত বা আইসিসি থেকে বেরিয়ে আসার বিষয়ে একটি প্রস্তাব অনুমোদন করেছেন আফ্রিকা মহাদেশের নেতারা। ইথিওপিয়ার রাজধানী আদ্দিস আবাবায় অনুষ্ঠিত আফ্রিকান ইউনিয়নের বার্ষিক সাধারণ অধিবেশনে এ প্রস্তাব অনুমোদন করা হয়। আইসিসি থেকে নিজেদেরকে প্রত্যাহারের প্রস্তাবটি তুলেছিল কেনিয়া।

আফ্রিকার নেতারা বিশ্বাস করেন, আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালত অন্যায়ভাবে এ মহাদেশের নেতাদেরকে বিচারের লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত করেছে কিন্তু বিশ্বের অন্য এলাকার মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনাকে উপেক্ষা করে চলেছে আইসিসি।

এবারের অধিবেশনে আফ্রিকান ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছে চাদ। আইসিসি থেকে আফ্রিকার দেশগুলোর সদস্যপদ প্রত্যাহারের প্রশ্নে নতুন সভাপতি চাদের প্রেসিডেন্ট ইদ্রিস দেবি বলেন, “বিশ্বের অন্য এলাকায় অনেক কিছু ঘটছে, মানবাধিকারের মারাত্মক লঙ্ঘন হচ্ছে কিন্তু কেউ এ বিষয়ে কিছু বলছে না।”

আইসিসি ছাড়ার প্রশ্নে আফ্রিকান ইউনিয়নের সিদ্ধান্ত মানতে মহাদেশটির কোনো দেশই বাধ্য নয় বরং সম্পূর্ণভাবে যার যার ইচ্ছার ওপর ন্যস্ত করা হয়েছে।

রোম ঘোষণার মাধ্যমে আইসিসি যাত্রা শুরু করেছিল এবং নেদারল্যান্ডে হেগ শহরে এর কার্যালয় অবস্থিত। বিশ্বের কোনো স্থানে যুদ্ধাপরাধ বা গণহত্যার ঘটনা ঘটলে তার বিচার করে থাকে এ আদালত। এ পর্যন্ত আফ্রিকার আটটি দেশের নেতাদের বিরুদ্ধে বিচার অথবা তদন্ত করেছে আইসিসি। দেশগুলো হচ্ছে- কেনিয়া, আইভরিকোস্ট, লিবিয়া, সুদান, কঙ্গো প্রজাতন্ত্র, মধ্য আফ্রিকান প্রজাতন্ত্র, উগান্ডা ও মালি।

এসব বিচারের ঘটনায় আফ্রিকার দেশগুলোর নেতাদের মাঝে আদালতের নিরপেক্ষতা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। অনেকেই মনে করেন, পশ্চিমা দেশগুলো বিশেষ আমেরিকা ও তার মিত্ররা নানা কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে এ মহাদেশে সন্ত্রাস ও যুদ্ধাবস্থা ধরে রাখতে চায়। এর বিপরীতে আফ্রিকার নেতাদেরকে বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড় করানো হচ্ছে।
[ads1]
[ads2]

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য