নওয়াজ-রুহানি বৈঠক যুদ্ধ নয় উন্নতির জন্য জোট দরকারআন্তর্জাতিক ডেস্কঃ পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফের সঙ্গে বৈঠক করেছেন ইরানের প্রেসিডেন্ট ড. হাসান রুহানি। বৈঠকে তিনি বলেছেন, যুদ্ধের জন্য নয় বরং মুসলিম দেশগুলোর উন্নয়নের জন্য জোট দরকার। ইয়েমেন যুদ্ধের জন্য সৌদি আরবের নেতৃত্বে গঠিত সামরিক জোটের দিকে ইঙ্গিত করে তিনি এ মন্তব্য করেছেন বলে মনে করা হচ্ছে।

মঙ্গলবার রাজধানী তেহরানে অনুষ্ঠিত বৈঠকে প্রেসিডেন্ট রুহানি বলেন, “আমরা বিশ্বাস করি মধ্যপ্রাচ্য ও মুসলিম বিশ্বের বর্তমান পরিস্থিতিতে যুদ্ধ নয় বরং ইসলাম এবং মুসলমানদের উন্নতির জন্য জোট গঠন করা দরকার।” ইরান ও সৌদি আরবের মধ্যকার সাম্প্রতিক উত্তেজনা সম্পর্কে পাক প্রধানমন্ত্রীর এক মন্তব্যের জবাবে প্রেসিডেন্ট রুহানি বলেন, “আমরা সম্পর্ক বাড়ানোর আহ্বান জানাই এবং যেসব অধিকারের প্রতি মুসলমানদের শ্রদ্ধা রয়েছে তা নস্যাতের মাধ্যমে কোনো উত্তেজনা সৃষ্টি হোক আমরা তা চাই না।”

মধ্যপ্রাচ্য অঞ্চলের চলমান নিরাপত্তাহীনতায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে ড. হাসান রুহানি বলেন, “বিশ্বের বিভিন্ন দেশ বিশেষ করে প্রতিবেশী দেশগুলোর সঙ্গে গঠনমূলক যোগাযোগের ওপর ভিত্তি করে ইরানি প্রশাসন তার কর্মকাণ্ড পরিচালনা করছে।” তিনি জানান, যেসব দেশ সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে লড়াই করছে তাদের অনুরোধে ইরান সহযোগিতার জন্য ইতিবাচক সাড়া দেবে। প্রেসিডেন্ট রুহানি পরিষ্কার করে বলেন, “মুসলমানদের মাঝে শিয়া-সুন্নি বিভাজনের প্রচেষ্টা কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়। আমরা সমস্ত মুসলমানের মধ্যে ঐক্য ও সহাবস্থানের জন্য সবার প্রতি আহ্বান জানাই।”

বৈঠকে নওয়াজ শরীফও মুসলমানদের মাঝে ঐক্য ও সংহতি বাড়ানোর ওপর জোর দিয়ে বলেন, তার দেশ সবসময় উত্তেজনা নিরসন ও মতপার্থক্য দূর করার জন্য চেষ্টা চালিয়েছে। বিশ্বব্যাপী যে ইসলামভীতি ছড়িয়ে দেয়া হচ্ছে সে বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেন, মুসলমানদের মধ্যে ঐক্য ও সংহতি না থাকার সুযোগ নিচ্ছে সন্ত্রাসী ও চরমপন্থিরা।

একটি উঁচু পর্যায়ের প্রতিনিধিদলের নেতৃত্ব দিয়ে নওয়াজ শরীফ মঙ্গলবার দিনব্যাপী সফরে তেহরান পৌঁছান এবং প্রেসিডেন্ট রুহানি ও প্রথম ভাইস প্রেসিডেন্ট ইসহাক জাহাঙ্গিরিসহ ইরানের গুরুত্বপূর্ণ কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করেন। এর আগের দিন তিনি সৌদি আরব সফর করেন এবং তেহরানের সঙ্গে রিয়াদের কূটনৈতিক উত্তেজনা নিরসনের বিষয়ে রাজা সালমান বিন আবদুল আজিজের সঙ্গে বৈঠক করেন। তার সঙ্গে পাক সেনাপ্রধান জেনারেল রাহিল শরীফও ছিলেন।
[ads1]
[ads2]

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য