মার্কিন নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে ক্ষেপণাস্ত্র কর্মসূচি চালিয়ে যাবে ইরানআন্তর্জাতিক ডেস্কঃ ইরানের ক্ষেপণাস্ত্র কর্মসূচিকে কেন্দ্র করে আমেরিকার নতুন নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও নিজের ক্ষেপণাস্ত্র সক্ষমতা বাড়ানোর কাজ চালিয়ে যাবে তেহরান। ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় আজ (সোমবার) এক বিবৃতিতে বলেছে, আমেরিকার এ ধরনের ‘প্রচারণা হাতিয়ার’র বিরুদ্ধে কঠোর জবাব দেবে তেহরান।

পরমাণু সমঝোতার জের ধরে শনিবার ইরানের ওপর থেকে আন্তর্জাতিক নিষেধাজ্ঞা উঠে যাওয়ার একদিন পর রোববার তেহরানের ওপর নতুন করে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে ওয়াশিংটন। মার্কিন অর্থ মন্ত্রণালয় জানায়, ইরানের ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র প্রকল্পের কারণে তেহরানের ওপর এ নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে।

এর প্রতিক্রিয়ায় ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিবৃতিতে বলা হয়েছে, “আমেরিকার এই প্রোপাগান্ডা স্টান্টবাজির জবাব হিসেবে আমরা আমাদের বৈধ ক্ষেপণাস্ত্র কর্মসূচিকে আরো শক্তিশালী করবো এবং নিজেদের প্রতিরক্ষা সক্ষমতা ও জাতীয় নিরাপত্তার ব্যাপারে কোনো ছাড় দেব না।”

গত ১১ অক্টোবর ইরানের ইসলামি বিপ্লবী গার্ড বাহিনী বা আইআরজিসি প্রথমবারের মতো গাইডেড ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র এমাদ’র পরীক্ষা চালায়। ওয়াশিংটন ওই পরীক্ষার নিন্দা জানিয়ে অভিযোগ করে, ক্ষেপণাস্ত্রটি পরমাণু ওয়ারহেড বহন করতে সক্ষম। সে সময় ইরানের বিরুদ্ধে আরো নিষেধাজ্ঞা আরোপের হুমকি দেয় ওয়াশিংটন।

তবে ইরানের প্রতিরক্ষামন্ত্রী ব্রিগেডিয়ার জেনারেল হোসেইন দেহকান বলেছেন, এমাদ ক্ষেপণাস্ত্র হচ্ছে একটি প্রচলিত যুদ্ধাস্ত্র এবং এর পরীক্ষা কোনো আন্তর্জাতিক আইনেই নিষিদ্ধ নয়। তিনি আরো জানান, তার দেশের কোনো ক্ষেপণাস্ত্রই পরমাণু ওয়ারহেড বহনের জন্য তৈরি করা হয়নি; কারণ পরমাণু অস্ত্র উৎপাদন, সংরক্ষণ ও ব্যবহারকে হারাম (ধর্মীয় দৃষ্টিতে নিষিদ্ধ) মনে করে তেহরান।
[ads1]
[ads2]

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য