সাংবিধানিক শূন্যতার জেরে জম্মু-কাশ্মিরে গভর্নরের শাসন জারিআন্তর্জাতিক ডেস্কঃ ভারত নিয়ন্ত্রিত জম্মু-কাশ্মিরে সাংবিধানিক সংকটের জেরে গভর্নরের শাসন জারি করা হয়েছে। গতকাল শনিবার রাত থেকে এখানে গভর্নরের শাসন কার্যকর করা হয়েছে। দিল্লিতে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের এক মুখপাত্র রাজ্যে গভর্নরের শাসন কার্যকর হওয়ার কথা নিশ্চিত করেছেন।

জম্মু-কাশ্মিরের গভর্নর এন এন ভোরার সুপারিশের ভিত্তিতে রাজ্যে গভর্নরের শাসন প্রয়োগ করার জন্য কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের সুপারিশে সম্মতি দিয়েছেন প্রেসিডেন্ট প্রণব মুখোপাধ্যায়।

একটি সূত্রে প্রকাশ, জম্মু-কাশ্মিরের মুখ্যমন্ত্রী মুফতি মুহাম্মদ সাঈদের মৃত্যুর পর শোকে আচ্ছন্ন হয়ে রয়েছেন তার মেয়ে এবং পিডিপি নেত্রী মেহবুবা মুফতি। তারই পরবর্তী মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেয়ার কথা রয়েছে। যদিও তিনি তাৎক্ষণিকভাবে মুখ্যমন্ত্রীর দায়িত্বভার সামলাতে রাজি না হওয়াতে রাজ্যে গভর্নরের শাসন জারি করতে হয়েছে। আজ (রোববার) চার দিনের শোক পালন শেষ হওয়ার পরেই মেহবুবা মুফতি এই নিয়ে সিদ্ধান্ত নেবেন।

প্রসঙ্গত, গত বৃহস্পতিবার অসুস্থতাজনিত কারণে ৭৯ বছর বয়সী মুখ্যমন্ত্রী মুফতি মুহাম্মদ সাঈদ দিল্লির এইমস হাসপাতালে মারা জান। তারপর থেকে মুখ্যমন্ত্রীর আসন খালি থাকায় রাজ্যে সাংবিধানিক শূন্যতা সৃষ্টি হয়।

পিডিপি জোট সরকারের সহযোগী বিজেপির পক্ষ থেকে ইঙ্গিত দেয়া হয়েছে রোববার চার দিনের শোক পালন শেষ হওয়ার পর রাজ্যে নয়া সরকার গঠন নিয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। এ নিয়ে পিডিপি এবং বিজেপির মধ্যে কোনোরকম মতপার্থক্যের কথা উড়িয়ে দিয়েছেন বিজেপি প্রেসিডেন্ট সতপাল শর্মা।

তিনি বলেন, ‘আমাদের পক্ষ থেকে নিশ্চিতভাবেই কোনো শর্ত আরোপ করা হয়নি। সরকার গড়া নিয়ে আমাদের নেতাদের মধ্যে কোনো আলোচনাও হয়নি। আমরা মুফতি সাহেবের শোকাকুল পরিবারের শোক পালনের অধিকারকে সম্মান করি।’

পিডিপি দলের সিনিয়র নেতা এবং সাবেক শিক্ষামন্ত্রী নঈম আখতার বলেন, ‘মেহবুবাজী এখনো শোকের মধ্যে রয়েছেন। মুফতি সাহেব কেবলমাত্র তার বাবাই ছিলেন না, তার গাইড, পরামর্শদাতা এবং অনুপ্রেরণা ছিলেন। আমরা এখনো সরকার গঠন নিয়ে আলোচনা করার মতো অবস্থায় নেই। সঠিক সময়েই দলীয় প্রেসিডেন্ট এবং নেতৃত্ব সরকার গঠন করা নিয়ে সিদ্ধান্ত নেবেন।’

এদিকে, আজ (রোববার) কংগ্রেস প্রেসিডেন্ট সোনিয়া গান্ধী পিডিপি প্রধান মেহেবুবা মুফতির সঙ্গে সাক্ষাৎ করে শোক জানাতে শ্রীনগরে যাচ্ছেন। জম্মু-কাশ্মিরের কংগ্রেস প্রেসিডেন্ট গুলাম আহমদ মীর জানান,‘সোনিয়া গান্ধী মুফতি পরিবারের বাসায় গিয়ে মেহবুবা মুফতির সঙ্গে দেখা করে শোক জ্ঞাপন করবেন।’ প্রয়াত মুফতি মুহাম্মদ সাঈদ এক সময় কংগ্রেসের মধ্যে ছিলেন। রাজ্যে ১১ বছর ধরে তিনি কংগ্রেসের প্রেসিডেন্টও ছিলেন। পরে তিনি কংগ্রেস ছেড়ে জনতা দলে যোগ দেন এবং এরপর পিডিপি দল গঠন করেন।
[ads1]
[ads2]

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য