ঠাকুরগাঁও আওয়ামী লীগ কার্যালয়ের সামনে দু’গ্রুপ সংঘর্ষে 2আরিফ হাসান ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি    সোমবার সকাল ১১টায় ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে ঠাকুরগাঁও আওয়ামী লীগ কার্যালয়ের সামনে দু’গ্রুপ সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, ছাত্রলীগের ৬৮তম প্রতিষ্ঠা বাষির্কী উপলক্ষে গত রোববার রাত থেকে ছাত্রলীগের বিদ্রোহী জিএম সিরাজি মিজান গ্রুপ জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয় দখল করে রাখে। পরে রাত ১২টা ১ মিনিটে কেক কেটে প্রতিষ্ঠা বাষির্কী উদযাপন করে। সোমবার সকাল সাড়ে ১১টায় বিদ্রোহী মিজান গ্র“প শহরে একটি র‌্যালি বের করে। র‌্যালিটি শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে চৌরাস্তায় সমাবেশ করে আওয়ামী লীগ কার্যালয়ের সামনে এসে অবস্থান নেয়।

অপরদিকে দুপুর সাড়ে ১২টায় কেন্দ্রীয় ঘোষিত ছাত্রলীগের সভাপতি মাহাবুব হোসেন রনি শহরের বলাকা সিনেমা হলের সামনে থেকে একটি র‌্যালি বের করে। র‌্যালিটি বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে আমতলা নামকস্থানে এতে পৌছলে বিদ্রোহী গ্রুপের নেতাকর্মীরা দেশীয় অস্ত্র নিয়ে ধাওয়া করে র‌্যালিটি ছত্রভঙ্গ করে দেয়। পরে উভয় পক্ষের মধ্যে প্রায় ৩ ঘণ্টা ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এসময় ইট-পাটকেলের আঘাতে উভয় পক্ষের অন্তত ২০ জন কর্মী আহত হয়।
ঠাকুরগাঁও আওয়ামী লীগ কার্যালয়ের সামনে দু’গ্রুপ সংঘর্ষে 1
পরে বিদ্রোহী গ্রুপকে ধাওয়া দিয়ে কেন্দ্রীয় ঘোষিত কমিটি আওয়ামী লীগ কার্যালয় দখল করে নেয়। এ সময় পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ৫ রাউন্ড টিয়ারসেল নিক্ষেপ করে।

পুলিশ জজ কোর্টের সামনে ব্যারিকেড দিয়ে রনি গ্রুপকে সরিয়ে দিলে বিদ্রোহী গ্র“প আবার ব্যারিকেডও ভেঙ্গে শহরের চৌরাস্তা দখলে নিয়ে বিভিন্ন দোকান ভাংচুর করে ও জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাড. মোস্তাক আলম টুলুর চেম্বারে হামলা চালায়।

স্থানীয়রা জানায়, ঠাকুরগাঁও জেলা ছাত্রলীগের দুইটি গ্র“প আছে। এক গ্র“প নিয়ন্ত্রণ করেন জিএম সিরাজি মিজান। তিনি জেলা নেতাদের দ্বারা গঠিত জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি। তিনি জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও ঠাকুরগাঁও-২ আসনের সংসদ সদস্য দবিরুল ইসলামের ছত্রছায়ায় চলে। অপরদিকে কেন্দ্রীয়ভাবে অনুমোদিত কমিটির সভাপতি মাহাবুব হোসেন রনি। তিনি ঠাকুরগাঁও সদর -১ আসনের এমপি রমেশ চন্দ্র সেনের অনুসারী।
ঠাকুরগাঁও আওয়ামী লীগ কার্যালয়ের সামনে দু’গ্রুপ সংঘর্ষে 3
কেন্দ্রীয় ঘোষিত জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মাহাবুর রহমান রনি বলেন, আমরা ছাত্রলীগের আসল কমিটি। প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী আমরা উদযাপন করবো সবাইকে নিয়ে। কিন্তু বিদ্রোহী গ্রুপ র‌্যালিতে হামলা চালায়। এতে উভয় পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বাধে।

বিদ্রোহী গ্রুপের সভাপতি জিএম সিরাজি মিজান বলেন, আমরা ছাত্রলীগের মাঠের নেতা কর্মীদের নিয়ে কমিটি গঠন করেছি। ওই গ্রুপের জেলা ছাত্রলীগ গঠনে কোনো অবদান নেই। আমরা দলীয় কার্যালয়ে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন করেছি। রনি গ্রুপের লোকজন আমাদের উপর ইট পাটকেল নিক্ষেপ করলে আমরা তাদের ধাওয়া দেই।

ঠাকুরগাঁও পুলিশ সুপার (সার্কেল) আবুল কালাম আজাদ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, দুই দলকে নিরাপদ স্থানে সরিয়ে রাখা হয়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে শহরে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য