News pic 29.11.15নবাবগঞ্জ (দিনাজপুর) প্রতিনিধি ॥ দিনাজপুরের নবাবগঞ্জে এক মাদ্রাসা ছাত্র নারী ছদ্ববেশে স্যালোয়ার-কামিজ, ওড়না পরিধান করে নিজেকে নারী রূপে পরিচয় দিয়ে এক বাসায় অবস্থান করার ঘটনায় এলাকাবাসী জানতে পেরে ওই ছদ্ববেশী মাকছুআরা’কে বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসী সন্ধ্যা ৬টা থেকে রাত ১০ টা পর্যন্ত একটি বাসায় আটক করে রাখে। পরে নবাবগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজেষ্ট্রেট মোঃ বজলুর রশীদ সংবাদ পেয়ে পুলিশ ফোর্সসহ ঘটনাস্থলে গিয়ে ওই ছাত্রকে থানা পুলিশ হেফাজতে নেয়। উপজেলা ডিগ্রীা কলেজ রোডে জগন্নাথপুর কলেজপাড়ার মৃত মাসুদ পারভেজ’এর ছেলে সুলতান মাহমুদ প্রিন্স জানান- উপজেলার মহিষবাতান গ্রামের জুয়েল হোসেন দীর্ঘদিন থেকে তাদের বাসায় অবস্থান করে। সে নিজেকে মেয়ে হিসেবে দাবী করে তাদের বাসায় আশ্রয় নেয়। এ সময় সে জ্বীনের বাদশার সাথে তার যোগাযোগ রয়েছে, গনাপড়া করে মানুষের কল্যাণ করতে পারবে এ ধরণের বিভিন্ন মিথ্যা ভিত্তিহীন তথ্য এলাকায় ছড়িয়ে নিজেকে জ্বীনের বাদশার পরিচয় দেয়। এ বিষয়ে ভালকা জয়পুর ফাজিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ আঃ রাজ্জাকের মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান- তার নাম জুয়েল হোসেন। সে ওই প্রতিষ্ঠান থেকে দাখিল ও আলিম পাশ করেছে। সম্প্রতি প্রিন্সের পিতার রহস্যজনক ভাবে মৃত্যু হয়ে মধ্যপাড়া এলাকার শালবন থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় আশ্রয় নেয়া ওই ছাত্র মোবাইল ফোনে বিভিন্ন স্থানে তার বাবার মৃত্যুর সংবাদ ছড়িয়ে দেয়। এ দেখে গত শনিবার রাতে তারা বিষয়টি প্রতিবেশীদের জানায়। এক পর্যায়ে আশ্রয় নেয়া মাদ্রাসা ছাত্র নারী নাকি পুরুষ এমন সন্দেহ হলে প্রতিবেশীরা তাকে তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে গুপ্তস্থান দেখে নিশ্চিত হয় সে পূর্ণাঙ্গ পুরুষ। খবরটি এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে শত শত উৎসুক জনতা তাকে একনজর দেখার জন্য ভীড় জমায়। এদিকে প্রিন্সের মা সালমা বেগম সাংবাদিকদের জানান- এই ছদ্বরূপী নারী আমার স্বামীকে হত্যা করেছে। এ বিষয়ে ছদ্ববেশী মাকছুআরা ’র সাথে যোগাযোগ করা হলে সে জানায়- কিছুদিন পূর্বে সে হঠৎ করেই ছেলে থেকে মেয়েতে পরিণত হয়ে নারী পোশাক পরিধান করেই অবস্থান করে। আবার, সম্প্রতি ১০দিন পূর্বে পূর্বের ন্যয় মেয়ে থেকে ছেলেতে পরিণত হয়। আমার এই শারিরীক পবির্তন হওয়ায় নিজেকে ছোট মনে হচ্ছে। পরিবারের কাছ থেকেও বিচ্ছিন্ন রয়েছি। আংকেলের বাসায় দারিদ্রতার কারণে অবস্থান নিয়ে লেখাপড়া করছিলাম। ওরা সকলে ভালো। আংকেলের মৃত্যুর ঘটনায় আমাকে যেভাবে জড়ানো হচ্ছে এর কোন সত্যতা নেই। এ ঘটনায় থানায় যোগাযোগ করা হলে ওসি তদন্ত জানান- ওই ছদ্ববেশীকে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। [ads1] [ads2]

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য