Electrick Poolমো. জাকির হোসেনঃ বাণিজ্যিক শহর নীলফামারীর সৈয়দপুরের শহীদ ডা. জিকরুল হক প্রধান সড়কটির মাঝে বৈদ্যুতিক খুঁটি রেখেই সড়ক প্রসস্থ করার করার কাজ শুরু হয়েছে। এতে করে চলাচলকারী লোকজনের অসুবিধা হলেও অনেক বলেও খুঁটি সরিয়ে নিচ্ছেন না স্থানীয় বিদ্যুৎ বিভাগ।

শহরে চলাচলে প্রধান সড়ক হচ্ছে শহীদ ডা. জিকরুল হক সড়ক। মিনিট খানেক এই সড়ক বন্ধ থাকলে গোটা শহরে ভয়াবহ যানজটের সৃষ্টি হয়। সামান্য বৃষ্টি হলে এই সড়কে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হওয়ার কারণে উঁচু করে সম্প্রসারণের কাজ শুরু করেছে পৌর কর্তৃপক্ষ। অথচ ওই সড়কে এখনও বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের (পিডিবি) ২৪টি বৈদ্যুতিক খুঁটি রয়েছে। এসব খুঁটি ফুটপাত থেকে প্রায় ৩ ফুট দূরে অবস্থিত। ফলে ফুটপাত থেকে ওই ৩ ফুট রাস্তা দিয়ে কোন বড় গাড়ি চলাচল করতে পারবে না।

স্থানীয় দোকানদাররা জানান, সৈয়দপুর উত্তরাঞ্চলের ব্যবসা- বাণিজ্যের একটি গুরুত্বপূর্ণ শহর। বাণিজ্যিক শহরের কারণে প্রতিদিন আশেপাশের জেলাগুলো থেকে শত শত ব্যবসায়ী ও পাইকাররা যানবাহন নিয়ে শহরে আসেন। এছাড়া দোকানদাররা বাইরে থেকে মালামাল নিয়ে আসার কারণে প্রতিদিনই ভিড় লেগে থাকে।

দেশের বৃহত্তম রেলওয়ে কারখানা, রেল পুলিশের এসপি অফিস, বিমানবন্দর, সেনানিবাস, বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থাকায় শহরে প্রতিটি সড়কে যানজট লেগেই থাকছে। কিন্ত যেভাবে পৌরসভার প্রধান সড়কটি প্রসস্থ করার কাজ হচ্ছে তাতে সাধারণ মানুষের ভোগান্তি কমবে না। বরং আরও বাড়বে বলে তাদের মত।

পৌরসভার সূত্র জানায়, বিশ্বব্যাংকের অর্থায়নে সড়ক প্রসস্থকরণে একাধিক প্রকল্পের কাজ শুরু হয়েছে। স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের এলজিএসপি প্রকল্পের আওতায় ৬৩০ মিটার শহীদ ডা. জিকরুল সড়কটি প্রসস্থকরণে ব্যয় ধরা হয়েছে ১ কোটি ১২ লাখ টাকা। ফলে ১৮ ফুট রাস্তাকে করা হচ্ছে ২৪ ফুট। রাস্তা প্রসস্থ হলে যানজট পরিস্থিতির উন্নতি হবে কিন্ত বাঁধ সেধেছে ওই রাস্তায় বৈদ্যুতিক খুঁটিগুলো।

সৈয়দপুর পৌরসভার নির্বাহী প্রকৌশলী শহীদুল ইসলাম বলেন, বৈদ্যুতিক খুঁটিগুলো বড় ধরণের সমস্যা হয়েছে। এজন্য তারা কাজ শুরুর আগেই পিডিবিকে চিঠি দিয়েছেন। পৌরসভার মেয়র অধ্যক্ষ আমজাদ হোসেন সরকার বলেন, পৌর কর্তৃপক্ষ বিদ্যুতের খুঁটিগুলো সরাতে পিডিবি এবং বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়কে চিঠি দিয়েছে।

তবে সৈয়দপুর বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী (আবাসিক) মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ বলেন, সড়কটির বৈদ্যুতিক খুঁটি স্থানান্তর সহজ কাজ নয়। বিষয়টি উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে।
[ads1]
[ads2]

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য