Joypurhat mapজয়পুরহাটের কালাই উপজেলার কয়েকটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দফতরি কাম প্রহরী পদে ওই প্রতিষ্ঠানের সভাপতিসহ অন্যান্য সদস্যদের অবজ্ঞা করে জোরপূর্বক নিয়োগ দানের প্রচেষ্টার বিরুদ্ধে উপজেলার থল গ্রামের আব্দুস সামাদ ম-লের ছেলে এবং থল-ধুনট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি শাহারুল ইসলামের চলতি বছরের ১৭ আগস্ট ৯ জনকে বিবাদী করে হাইকোর্টে রিট আবেদন করেন। তার করা রিটের প্রেক্ষিতে শুনানি শেষে বিচারপতি কাজী রেজাউল হক ও বিচারপতি আবু তাহের মো. সাইফুর রহমান সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ গত ১৩ সেপ্টেম্বর ৬ মাস পর্যন্ত ওই নিয়োগ কার্যকারিতা স্থগিত করার আদেশ দেন।

অনুসন্ধ্যানে জানা গেছে, সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দফতরি কাম প্রহরী পদে নিয়োগে সংসদ সদস্যদের সুপারিশই  চূড়ান্ত করে নিয়োগ বিধিমালার সংশোধনী, ২০১৫ এর ৭ (২) অনুচ্ছেদ কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না, এই মর্মে হাইকোর্টে নিয়োগ পরিপত্রের উপর চলতি বছরের ১৩ এপ্রিল হাইকোর্টে রিট আবেদন করেন নাটোর জেলার সদর উপজেলার লতাবাড়ীয়া গ্রামের এম এ কে রেজাউর মোল্লার ছেলে এম এ জেড মশিউর মোল্লা।

শুনানি শেষে বিচারপতি কাজী রেজাউল হক ও বিচারপতি আবু তাহের মো. সাইফুর রহমান সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ রুলের শুনানি শেষ না হওয়া পর্যন্ত সেই নিয়োগ কার্যকারিতা স্থগিত করার আদেশ দেন। ওই আদেশের বিরুদ্ধে গত ৭ জুলাই সুপ্রিমকোর্টে আপিল করা হয়। আপিলের শুনানি শেষে হাইকোর্টের স্থগিত আদেশ বহাল থাকে। হাইকোর্টের এ স্থগিত আদেশের প্রেক্ষিতে চলতি বছরের ১২ মে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের প্রশাসন-২ অধিশাখার যুগ্ম-সচিব জ্যোতির্ম্ময় বর্ম্মন স্বাক্ষরিত একটি জরুরি পত্রাদেশে হাইকোর্টের ওই স্থগিত আদেশ থাকা কালে দফতরি কাম প্রহরী পদে নিয়োগ কার্যক্রম স্থগিত রাখার জন্য সংশ্লিষ্ট সকলকে নির্দেশ প্রদান করেন।

তা সত্বেও কালাই উপজেলার থল-ধুনট, তেলিহার, বেজখ-, ইন্দাহার, মাত্রাই, সমশিরা, বানদীঘিসহ আরও কয়েকটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দফতরি কাম প্রহরী পদে ওই প্রতিষ্ঠাগুলোর সভাপতিসহ অন্যান্য সদস্যদের অবজ্ঞা করে জোরপূর্বক নিয়োগ দানের প্রচেষ্টা করা হলে চলতি বছরের ১৭ আগস্ট ৯ জনকে বিবাদী করে হাইকোর্টে রিট আবেদন করেন কালাই উপজেলার থল গ্রামের আব্দুস সামাদ ম-লের ছেলে এবং থল-ধুনট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি শাহারুল ইসলাম। তার করা রিটের প্রেক্ষিতে শুনানি শেষে বিচারপতি কাজী রেজাউল হক ও বিচারপতি আবু তাহের মো. সাইফুর রহমান সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ গত ১৩ সেপ্টেম্বর ৬ মাস পর্যন্ত ওই নিয়োগ কার্যকারিতা স্থগিত করার আদেশ দেন।

কালাই উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মো. জহুরুল ইসলাম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দফতরি কাম প্রহরী পদে নিয়োগে হাইকোর্টের স্থগিত আদেশের বিষয় নিশ্চিৎ করে বলেন, এ বিষয়ে মন্ত্রণালয়ের স্থগিত আদেশের চিঠি পেয়ে উপজেলার সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানে ওই নিয়োগ কর্যক্রম বন্ধ রাখার জন্যে চিঠি দেয়া হয়েছে।
[ads1]
[ads2]

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য