কাউনিয়ার মহিলারা পাট দিয়ে তৈরী করছে দৃষ্টি নন্দন কারুপণ্যএক সময়ের সোনালী আঁশ পাট যখন তার ঐতিহ্য হারাতে বসেছে ঠিক তখনি কাউনিয়া উপজেলার বালাপাড়া ইউনিয়নের চরাঞ্চলের মহিলারা পাট দিয়ে বিভিন্ন কারুপণ্য তৈরী করে নিজেদের ভাগ্য পরিবর্তনের পাশাপাশি সোনালি আঁশ পাটের হারানো গৌরব ফিরিয়ে আনতে ব্যস্ত সময় পার করছে ।

সংসার ধর্ম পালনের পাশাপাশি অবসর সময়ে নানা আলপনায় গ্রাম বাংলার মানুষের নিত্য প্রয়োজনীয় উপকরণ তৈরী করে বাড়তি আয়ের পথ খুঁজে নিয়েছে । মাত্র এক বছর আগেও রংপুরের কাউনিয়া উপজেলার চরাঞ্চলের গৃহিনীরা বসে শুঁয়ে দিন কাটাতো কিন্ত এখন সেই গৃহিনীরা কর্মজীবী।

তারা এখন আর সংসারের বোঝা নয় বরং নিজে কাজ করে সংসারে কিছু বাড়তি আয় করতে পারছে। এমনটি জানালো রংপুরের কাউনিয়া উপজেলার পান্জর ভাঙ্গা,মাল গোডাউন,নিজ পাড়া গ্রামের গৃহিনী রাজিয়া, আয়শা,মমেনা,রাশেদা,আমেনা,মর্জিনা ওকুলছুমরা। তারা জানায় তাদের নিজের হাতে পাটের দৃষ্টি নন্দন কারুপণ্য এখন তাদের ভাগ্য কিছুটা হলেও ফিরিয়ে দিয়েছে । এখন আর তারা কারো বাড়ির ঝিঁ নয়, তারা নিজের পাঁয়ে দাড়িয়েছে । আর সেই পথ দেখিয়েছে পাঞ্চর ভাঙ্গা গ্রামের পেপার বিক্রেতা আনোয়ার হোসেনের স্ত্রী রাজিয়া সুলতানা। আজ তারা সুদিনের মুখ দেখলেও তাদের তৈরী কারুপণ্যের নির্ধারিত বাজার না থাকায় কিছুটা হতাশ ওঁরা ।

উপজেলার তিন গ্রামের প্রায় ৮০ জন গৃহিনী এখন সংসারের কাজ সামলে বাজার থেকে পাট কিনে রকমারি ব্যাগ,কার্পেট,টেবিল সেট,পার্স,মানিব্যাগ,পাপোস,ছিঁকা,ফুলের ঝুড়ি,স্যান্ডেল-জুতাসহ ১০ রকমের দৃষ্টি নন্দন পাটপণ্য তৈরী করছে ।

এসব বিক্রিী করে তারা প্রত্যেকেই মাসে প্রায় ১ হাজার থেকে ২ হাজার টাকা পর্যন্ত বাড়তি আয় করছে । তাদের তৈরী দ্রব্যের মূল্য খুবই কম, ৫০ টাকা থেকে ৪০০ টাকায় ওখানে মিলছে নানা রকম কারুপণ্য । রাজিয়া সুলতানা জানান তিনি কেয়ার বাংলাদেশ এর দেবী চৌধুরানী পল্লী উন্নয়ন সংস্থার “সুইস এসিয়া জুট ভ্যেলু চেইন প্রজেক্ট, বিআরডিবি ও জাগরনী চক্র থেকে প্রশিক্ষণ নিয়ে এলাকার গরীব মহিরাদের প্রশিক্ষণ দিয়ে এ কাজ করছেন ।

রাজিয়া জানান তাদের তৈরী দ্রব্যাদির অস্থায়ী বাজার রংপুর ও ঢাকা । কিন্তু নির্ধরিত কোন বাজার নেই তাই সময় মত এসব দ্রব্য বিক্রি করতে না পেরে নানা দূর্ভোগে পড়তে হয় ।তিনি তাদের তৈরী পাটের দৃস্টি নন্দন দ্রব্যের স্থায়ি বাজারের জন্য সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি অনুরোধ জানিয়েছেন ।
[ads1]
[ads2]

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য