চিরিরবন্দরে বিভিন্ন সড়কে বিপদজনক খালাখন্দদিনাজপুর সংবাদাতাঃ চিরিরবন্দরে বিভিন্ন সড়কে বিপদজনক খালাখন্দে জনগনকে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। দিনাজপুর পার্বতীপুর সড়কের ৩৫ কিঃমি পাকা রাস্তার পার্শ্বে অসংখ্য বড় বড় খানাখন্দে ভরা। বর্ষা মৌসুমে রাস্তার পার্শ্বের মাটি সরে গিয়ে খানাখন্দের সৃষ্টি হয়েছিল। এতে প্রতিনিয়তই ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে এই সড়কের চলাচলকারী সাধারন যাত্রীদের আর ঘটেই চলেছে ছোট বড় দুর্ঘটনা। চলাচলের উপযোগী করার জন্য স্বল্পকালীন মেরামতেরও কোন উদ্দ্যেগ চোখে না পড়ায় যাত্রী সাধারনের মধ্যে ব্যাপক ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। কারেন্টহাট ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ জালাল উদ্দীন মজুমদার, মন্মথপুর আইডিয়াল ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ আমিনুর রহমান বলেন, জরুরী ভিত্তিতে উক্ত সড়কটি চওড়া ও প্রশস্ত করা দরকার। বাসচালক মোকছেদ আলী, ট্রাক চালক আঃ রশিদসহ সকল চালকগন জানান, খুব সাবধানে গাড়ী চালালেও দুর্ঘটনা ঘটেই যায়।

জানা গেছে, বেলতলী বাজার-বিন্যাকুড়ী-দেবীগঞ্জ রাস্তা, দিনাজপুর-পার্বতীপুর সড়কের আমতলী মোড় হতে মামুদপুর, বেলতলী বাজার হতে কুতুবডাঙ্গা উচিতপুর মোড়, চিরিরবন্দর মোড় হতে চিরিরবন্দর থানা, ঘুগুরাতলী মোড় হতে রাণীরবন্দর সড়কে সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষের যথাযথ নজরদারী না থাকায় দীর্ঘদিন যাবৎ বড় বড় গর্ত ও রাস্তা সংস্কার না থাকায় দীর্ঘদিন যাবৎ বড় বড় গর্ত ভরাট ও রাস্তা সংস্কার না করায় জনগনের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্চে।

উপজেলার এই রাস্তাগুলো দিয়ে প্রতিনিয়ত বিশেষ করে রাণীরবন্দর হাট, বিন্যাকুড়ী হাট, চিরিরবন্দর হাট, আমবাড়ী হাট, পার্বতীপুর হাট, অকড়াবাড়ী হাটের দিনে ধানবোঝাই শতশত ভারী যানবাহন ট্রাক,ট্রাক্টর, মিনি ট্রাক,পিকআপ, ভটভটি, অটোভ্যান, মটর ভ্যান, মাইক্রোবাস, ডেলের লরি, ও যাত্রীবাহী ঢাকা কোচ ও লোকাল বাস চলাচল করে। এতে করে রাস্তাগুলোর সমস্যা দিনদিন আরও প্রকট আকার ধারন করছে। প্রতিবছর উপজেলার বিভিন্ন রাস্তা সংস্কারের কাজ চললেও উপজেলা সদরের প্রানকেন্দ্রের ব্যস্ততম রাস্তাগুলোর সংস্কারের দিকে তেমন নজর নেই কর্তৃপক্ষের। এলজিইডি কর্তৃপক্ষ তাদের আওতাভুক্ত রাস্তা গুলোতে  সংস্কার করলেও সড়ক ও জনপথ বিভাগ চুপ করে রয়েছে। এতে করে দুর্ভোগকে উপেক্ষা করে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে যাতায়াত করতে হচ্ছে যাত্রী সাধারন ও জনগনের।

উপজেলা প্রকৌশলী ফিরোজ আহম্মেদ জানান, তাদের আওতাভুক্ত রাস্তাগুলোতে কার্পেটিং ও প্রয়োজনীয় সংস্কার কাজ করা হয়েছে। কিন্তু অত্র দপ্তর হতে কয়েকটি রাস্তা সড়ক ও জনপথ বিভাগে হস্তান্তর হওয়ায় তাদের করার কিছু নেই। তবে গ্রামীন কয়েকটি রাস্তায় জরুরী ভিত্তিতে গাইডওয়াল নির্মান করা জরুরী। দিনাজপুর সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ সুরুজ মিয়া জানান, দিনাজপুর-পার্বতীপুর সড়কে আত্রাই ব্রীজ, কাঁকড়া ব্রীজ, ইছামতি ব্রীজ, গাবুড়া ব্রীজ, ছোট যমুনা ব্রীজসহ কয়েকটি ব্রীজ পুননির্মান জরুরী। উক্ত ব্রীজগুলি নতুনভাবে নির্মিত হলে রাস্তা প্রশস্ত করা সহজ হবে। ইতিমধ্যে কয়েকটি ব্রীজ নির্মানের জন্য প্রয়োজনীয় পরীক্ষা নিরীক্ষা সম্পন্ন ও  প্রকল্প গ্রহন করা হয়েছে।

তবে জনগন ও যানবাহন ও চলাচলের উপযোগী করতে স্পল্প মেয়াদী কিছু সংস্কার ও মেরামতের কাজ শুরু করা হয়েছে। ইতিমধ্যেই উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হয়েছে। বরাদ্দপ্রাপ্তি স্বাপেক্ষে সড়কটির প্রয়োজনীয় কাজ করা হবে। দিনাজপুর-পার্বতীপুর সড়কে সবচেয়ে বেশী বেকায়দায় পড়েছেন চিরিরবন্দরের জনগন। ট্রেন যোগাযোগ সুবিধাজনক না হওয়ায় অধিক সংখ্যক জনগন উক্ত সড়ক ব্যবহার করে থাকেন। উক্ত সড়কে চলাচলকারী জনগন দিনাজপুরের তিন ভিভিআইপি পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী এমপি, প্রাথমিক গনশিক্ষা মন্ত্রী মোস্তাফিজার রহমান ফিজার এমপি, জাতীয় সংসদের হুইপ মোঃ ইকবালুর রহিম এমপিকে দ্রুত কার্যকর পদক্ষেপ নেয়ার দাবী জানান।
[ads1]
[ads2]

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য