ক্যামেরায়ঃ দেলোয়ার হোসেন বাদশা, চিরিরবন্দর।

ক্যামেরায়ঃ দেলোয়ার হোসেন বাদশা, চিরিরবন্দর।

দেলোয়ার হোসেন বাদশা, চিরিরবন্দরঃ দিনাজপুরের চিরিরবন্দর উপজেলার সাঁইতাড়া ইউনিয়নের খোচনা গ্রামের হানিফ শাহ্পাড়ায় জমি সংক্রান্ত বিরোধকে কেন্দ্র করে মারপিটে গুরুতর আহত আমিনুল নামে এক ব্যক্তি নিহত হয়। এ হত্যাকান্ডকে কেন্দ্র করে আবু সায়েম নামে এক ব্যক্তিকে পুলিশ আটক করেছে।

ঘটনার বিবরণে জানা যায়,  উপজেলার কারেন্টহাট ডিগ্রী কলেজের প্রদর্শক ও খোচনা গ্রামের হানিফ শাহ্পাড়ার আবেদুর রহমানের সঙ্গে ওই পাড়ার সাইদুল ইসলামের জমি নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল। আবেদুর রহমানের দায়ের করা একটি মামলায় হাজিরা দিতে যাওয়ার পথে গত ২৮ সেপ্টেম্বর প্রতিপক্ষরা বাড়ির পার্শবর্তী মাদ্রাসার কাছে ইলিয়াসের পুত্র মিজানুর রহমান,  সাইদুল,  তাহের, মিল্লা,  নুর ইসলাম, ইলিয়াসের স্ত্রী, ইউনুসের স্ত্রী আবেদুরকে বেদম মারপিট শুরু করে।

এসময় আবেদুর রহমানের বাড়ির লোকজন ঘটনাস্থলে এগিয়ে আসলে হামলাকারীরা স্থানীয় বাজারে দিকে পালিয়ে যায়। এ সংবাদ পেয়ে আবেদুরের ছোট ভাই আমিনুল ইসলাম বাজার থেকে বাড়ি ফেরার পথে বাংলাবাজারের দক্ষিণ পার্শ্বে পৌঁছামাত্র হামলাকারীরা তার উপর হামলা চালায় এবং বেধড়ক মারপিট করে গুরুতর আহত অবস্থায় ফেলে রেখে যায় । এ সময় স্থানিয় লোকজন আমিনুল ইসলামকে গুরুতর আহত অবস্থায় হাসপাতালে নেয়ার পথে বাংলাবাজারে পৌঁছামাত্র হামলাকারীরা পুনরায় ধারালো অস্ত্র দিয়ে তাকে আঘাত করে।

ক্যামেরায়ঃ দেলোয়ার হোসেন বাদশা, চিরিরবন্দর।

ক্যামেরায়ঃ দেলোয়ার হোসেন বাদশা, চিরিরবন্দর।

স্থানীয় লোকজন আহত আমিনুলকে রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করে চিরিরবন্দর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে দিমেক হাসপাতালে প্রেরণ করে। সেখানে তার অবস্থার অবনতি হলে গত ৩ অক্টোবর ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠায়। ঢাকায় নেয়ার পথে সে বগুড়ায় মৃত্যুবরণ করে। মরদেহের ময়না তদন্ত শেষে গত ৪ অক্টোবর রাতে আমিনুলকে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করে। এ ব্যাপারে আবেদুর রহমান বাদি হয়ে থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করে।

চিরিরবন্দর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. আনিছুর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, আবেদুরের মামলায় আবু সায়েম নামে এক ব্যক্তিকে আটক করে কোর্টে সোর্পদ করা হয়েছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য