ক্যামেরায়ঃ সাহেব, দিনাজপুর।

ক্যামেরায়ঃ সাহেব, দিনাজপুর।

মাহবুবুল হক খান, দিনাজপুর ॥ গুরুতর অসুস্থ এম. আব্দুর রহিমকে সোমবার (৫ অক্টোবর) সকাল ১০টায় দিনাজপুর থেকে এয়ার এ্যাম্বুলেন্সযোগে ঢাকার বারডেম হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। এম. আব্দুর রহিম মুক্তিযুদ্ধকালীন সরকারের পশ্চিমাঞ্চলীয় জোনের চেয়ারম্যান, মহান মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক এবং জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানে ঘনিষ্ট সহচর ছিলেন। তিনি আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১ এর চেয়ারম্যান বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিমের পিতা।

প্রবীন রাজনীতিবিদ এম. আব্দুর রহিম দীর্ঘদিন ধরে ডায়াবেটিস, কিডনি, হাইপারটেনশনসহ বার্ধক্যজনিত বিভিন্ন রোগে ভুগছেন। তার স্বাস্থ্যের অবনতি হলে ২৯ সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার রাতে তাকে দিনাজপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের কার্ডিওলজি বিভাগের সিসিইউ ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়। সেখানেও তার অবস্থার বিশেষ উন্নতি না হওয়ায় পরিবারের লোকজন তাকে ঢাকায় নিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়।

সোমবার সকাল ১০টায় দিনাজপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল হতে এয়ার এ্যাম্বুলেন্সযোগে তাকে ঢাকায় নিয়ে যাওয়া হয়। ঢাকায় তাকে বারডেম হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে বলে পরিবারের সদস্যরা জানান।

এম আব্দুর রহিম ছাত্রাবস্থায় রাজশাহী কলেজে ভাষা আন্দোলনের কর্মসূচীতে সংযুক্ত ছিলেন। মুসলিমলীগ সরকারের হক-ভাসানী-সোহরাওয়ার্দীর যুক্তফ্রন্টের একজন কর্মি হিসেবে হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর সঙ্গে ১৯৫৪ সালের নির্বাচনি প্রচারাভিযানে অংশ নেন।

ক্যামেরায়ঃ সাহেব, দিনাজপুর।

ক্যামেরায়ঃ সাহেব, দিনাজপুর।

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ অন্যান্যদের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত ঐতিহাসিক আগরতলা মামলার লিগ্যাল এইড কমিটির একজন সদস্য ছিলেন এম. আব্দুর রহিম। আওয়ামীলীগের প্রার্থী হিসেবে ১৯৭০ সালে প্রাদেশিক পরিষদের সদস্য নির্বাচিত হয়ে ১৯৭১ এর মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে বৃহত্তর দিনাজপুর আঞ্চলের মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক হিসেবে অক্লান্ত পরিশ্রম করেন।

৭১ এর ১৭ এপ্রিল মুজিবনগর সরকার গঠন হলে গোটা দেশকে যুদ্ধ পরিচালনার জন্য ১১টি বেসামরিক জোনে ভাগ করা হয়। মুজিবনগর সরকার এম. আব্দুর রহিমকে পশ্চিম জোনের জোনাল চেয়ারম্যান নিযুক্ত করেন। দেশ স্বাধীন হওয়ার পর তিনি ১৮ ডিসেম্বর সকাল ১১টায় দিনাজপুর গোর-এ-শহীদ বড় ময়দানে আনুষ্ঠানিকভাবে প্রথম স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলন করেন।

১৯৭২ সালের ১১ এপ্রিল স্বাধীন বাংলাদেশের সংবিধান প্রনয়নের জন্য গঠিত কমিটির ৩৪ জন সদস্যের মধ্যে একজন সদস্য ছিলেন এম. আব্দুর রহিম। ওই সালের ৪ নভেম্বর তাদের প্রণীত সংবিধান জাতীয় সংসদে গৃহীত হয় এবং একই বছরের বিজয় দিবসের প্রথম বার্ষিকী থেকে তা কার্যকর হয়।

এম. আব্দুর রহিম ১৯৯১ সালে দিনাজপুর সদর আসন থেকে জাতীয় সংসদ সদস্য পুনরায় নির্বাচিত হন। তিনি দীর্ঘদিন দিনাজপুর জেলা আওয়ামীলীগ ও দিনাজপুর জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন।
[ads1]
[ads2]

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য