Press Conf. Pic. 21-09-15মাহবুবুল হক খান, দিনাজপুর ॥ দিনাজপুর পৌরসভার মেয়রের বিরুদ্ধে লীজ বাতিল নিয়ে প্রতারণার অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন করেছেন শহরের দক্ষিণ মুন্সীপাড়া এলাকার মৃত মো. রুস্তম আলীর ছেলে মো. শমসের আলী।

সোমবার (২১ সেপ্টেম্বর) সকাল ১১টায় দিনাজপুর প্রেসক্লাবে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এই অভিযোগ করেন।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে শমসের আলী বলেন, শহরের সুইহারী এলাকার প্রাণনাথপুর মৌজার ৪৮১ নং দাগের ০.১৩ এবং ৪৮০ নং দাগের ০.০৭ একর জমি সরকারের এল/এ ১৩/৪/৬৭-৬৮ নং কেসে ৪৮১/১০৭৫ নং দাগ হতে ০.৫ একরসহ একুনে .২৫ একর জমি এবং তার উপর অবস্থিত চৌরঙ্গী সিনেমার হলের মালিক ছিলেন আমার পিতা রুস্তম আলী। ওই সিনেমা হল সংলগ্ন উত্তর পাশের দিনাজপুর পৌলসভার ১০৪ বর্গফুট জায়গার লীজ প্রদান বাতিল করে অভিনব প্রতারণার আশ্রয় নিয়ে আমাকে (বৈধ লীজ প্রহীতা) হয়রানী করছেন পৌর মেয়র।

সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, পৌরসভার লীজ প্রদানের দরখাস্ত আহবানের সূত্র ধরে রুস্তম আলী (মৃত) পৌরসভা বরাবর দরখাস্ত করেন। দরখাস্ত মোতাবেক তৎকালিন পৌর কর্তৃপক্ষ ১৯৭০ সালে উক্ত জমি তাকে লীজ প্রদান করেন। পৌরসভার স্মারক নং-৪(৬) তারিখ ০৭-০৩-৭০। লীজ দলিলের শর্ত মোতাবেক লীজ নবায়ন করে আমার পিতা উক্ত জমি ভোগ দখর করে আসার এক পর্যায়ে গত ১৫-১২-১৯৯৪ সালে মারা যান।

পরবর্তিতে ওয়ারিশ সূত্রে আমি শমসের আলী উক্ত জমির মালিক হই এবং দখলদার হিসেবে লীজ নবায়ন করার জন্য গত ০৩-০৯-১৪ তারিখে দরখাস্ত করি। সে মোতাবেক পৌর কর্র্তৃপক্ষ আমার অনুকূলে উক্ত জমির রীজ নবায়ন করেন এবং নির্ধারিত সময় (২০১৪-২০১৫) পর্যন্ত লীজমানি হিসেবে ১৫৬০ টাকা গ্রহন করে। যার মেয়াদ ছিল ০২-১০-২০১৫ পর্যন্ত। আমি ০২-১০-২০১৪ হতে ০২-১০-২০১৫ পর্যন্ত লীজমানি প্রদান করি। এছাড়াও ২০১৫-১৬ পর্যন্ত বাৎসরিক ভাড়া পৌর কর্তৃপক্ষ আমার কাছ থেকে গ্রহণ করে। কিন্তু মেয়াদ উত্তীর্ণ হওয়ার পূর্বেই কোন নোটিশ ছাড়াই কেন আমার এই লীজ বাতিল করা হলো তা জানতে চাই।

সংবাদ সম্মেলনে তিনি আরো অভিযোগ করেন, আমার প্রতিপক্ষ শাহনেওয়াজ রাজু গং জাল দলিল সৃষ্টি করে আমার পিতা রুস্তম আলীর সম্পত্তি আত্মসাতের অপচেষ্টা চালালে সদর সিনিয়র জজ আদালতে দু’টি স্বত্বের মোকাদ্দমা দায়ের করি। যার নং-১১২/২০১২ এবং ২১৯/২০১২। শুনানী শেষে বিজ্ঞ আদালত ০৭-১০-১২ তারিখে শাহনেওয়াজ রাজু গং এর বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞার আদেশ দেন।

কিন্তু পৌর কর্তৃপক্ষ ১৯-০৮-২০১৫ তারিখের দিনাজ/পৌর/২০১৫/১৬৭১ নং স্মারকে হঠাৎ করেই আমার লীজ বাতিল করে দেন। একই সাথে ওসমান আলীর পুত্র শাহনেওয়াজ রাজুর নামে লীজ দেয়া হয়। অথচ কোন কালেই ওসমান আলীর নামে লীজ বরাদ্দ ছিল না। মেয়র প্রতারণার আশ্রয নিয়ে এমনটি করেছেন মর্মে অভিযোগ করা হয়। পৌর কর্র্তৃপক্ষ মিথ্যার আশ্রয় নিয়ে কোন গ্রহণযোগ্য কারণ ছাড়া আমাকে কোন নোটিশ না দিয়ে কোন বিজ্ঞপ্তি ছাড়াই আমার লীজ বাতিল করেছেন।

সংবাদ সম্মেলনে শমসে আলী বলেন, পৌরসভার লীজ বাতিলের আদেশের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগে একটি রীট পিটিশন দাখিল করলে মহামান্য হাইকোর্ট শুনানী শেষে বিচারপতি নাঈমা হায়দার ও মোস্তাফা জামানের বেঞ্চ গত ১৪-০৯-২০১৫ ইং তারিখে পৌর কর্তৃপক্ষের উক্ত লীজ বাতিলের আদেশকে আইনবর্হিভূত এবং অবৈধ মর্মে উক্ত আদেশকে স্থগিত ঘোষণা করেন।

সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ ধরনের প্রতারণার আশ্রয় নেয়ায় মেয়রের বিরুদ্ধে সুষ্ঠু তদন্ত দাবী করেছেন ও তার অধিকার ফিরে পাওয়াসহ সুবিচার কামনা করেছেন।
[ads1]
[ads2]

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য