PIC-01আরিফ উদ্দিন, গাইবান্ধা থেকেঃ গাইবান্ধার মহিমাগঞ্জস্থ রংপুর চিনিকলের আওতাধীন সাহেবগঞ্জ ইক্ষু খামারের জন্য শর্ত সাপেক্ষে প্রদানকৃত জমি ফিরিয়ে পাওয়ার দাবিতে গতকাল শনিবার গাইবান্ধা শহরের ১নং রেলগেট এলাকায় আদিবাসী ছাত্র পরিষদ ও আদিবাসী যুব পরিষদ গাইবান্ধা জেলা শাখার উদ্যোগে এক মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করা হয়।

গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার রামপুর, সাপমারা, মাদারপুর, নারাংগাবাদ ও চকরাহিমপুর মৌজার ১৮৪২.৩০ একর জমি মহিমাগঞ্জস্থ রংপুর চিনিকল কর্তৃপক্ষ মিলটির প্রতিষ্ঠা লগ্নে শর্ত সাপেক্ষে আধিবাসিদের কাছ থেকে গ্রহণ করে। শর্ত ছিল ওই জমিতে কখনও আখ চাষ করা না হলে পরবর্তীতে মূল মালিক অথবা তাদের উত্তরাধিকারদের কাছে তা ফেরত দেয়া হবে। কিন্তু অব্যাহত লোকসানের মুখে একপর্যায়ে চিনিকলটি বন্ধ ঘোষনা করা হয়।

পরবর্তীতে মিলটি পুনরায় চালু করা হলেও সাহেবগঞ্জ ইক্ষু খামারে আর আখ চাষ করা হয়নি। বরং ওই জমি স্থানীয় প্রভাবশালীদের লীজ দিয়ে ভুট্টা এবং অন্যান্য ফসলের চাষাবাদ করা হয়েছে। এরই পরিপ্রেক্ষিতে জমিদাতারা তাদের সাথে শর্ত লংঘন করার পরিপ্রেক্ষিতে বেশকিছুদিন থেকে করতে জমি ফেরত দেয়ার দাবি জানিয়ে আসছে। ওই দাবিরই অংশ হিসেবে গতকাল গাইবান্ধা শহরে এক মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করা হয়।

এসময় বক্তব্য রাখেন আদিবাসী ছাত্র পরিষদ, গাইবান্ধা জেলা শাখার আহ্বায়ক দিপু রবিদাস, সদস্য সন্ধ্যা রবিদাস, আদিবাসী যুব পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি হরেন্দ্রনাথ সিং, আদিবাসী ছাত্র পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি বিভূতী ভূষণ মাহাতো,  ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক হেমন্ত মাহাতো, নারী বিষয়ক সম্পাদক সুমিতা রবিদাস, আদিবাসী যুব পরিষদ রাজশাহী জেলা শাখার যুগ্ম-আহ্বায়ক হুরেন মুর্মু, সাহেবগঞ্জ-বাগদাফার্ম ভূমি উদ্ধার সংগ্রাম কমিটির সদস্য গণেশ মুর্মু, মো: হাবিবুর রহমান, গোবিন্দগঞ্জ আদিবাসী ছাত্র ফেডারেশন এর সভাপতি রতন মার্ডি প্রমুখ।

আদিবাসীদের এ আন্দোলনের প্রতি সংহতি প্রকাশ করে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির জেলা সভাপতি ওয়াজিউর রহমান র‌্যাফেল, বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পাটি জেলা শাখার সাধারন সম্পাদক রেবতী বর্মন, বাংলাদেশ যুব ইউনিয়ন এর কেন্দ্রীয় প্রেসিডিয়াম সদস্য ও জেলা সভাপতি প্রতিভা সরকার ববি, অ্যাডভোকেট মুরাদ জামান রব্বানি, রানু সরকার প্রমুখ।
[ads1]
[ads2]

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য