Dinajpur Birganj Photo-02বীরগঞ্জ (দিনাজপুর) প্রতিনিধি ॥ দিনাজপুরের বীরগঞ্জে গোলাপগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ শহীদুল ইসলামের বেত্রাঘাতে আহত হয়ে ৩ ছাত্রী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হয়েছে। বিক্ষুদ্ধ জনতার বিদ্যালয় বিক্ষোভ প্রদর্শন  করে প্রধান শিক্ষকের শাস্তি দাবি জানিয়েছেন।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার রাসেল মনজুর এবং বীরগঞ্জ থানার ওসি মোঃ জাহাঙ্গীর হোসেন ঘটনাস্থলে এসে বিক্ষুদ্ধ জনতাকে শান্ত করার চেষ্টা অব্যাহত রেখেছেন।
Dinajpur Birganj Photo-06
আহতরা হলেন মরিচা ইউনিয়নের সাতখামার গ্রামের সাজেদুল ইসলামের কন্যা মোছাঃ মমতাজ পারভীন বর্ষা (১৪) রোল-১৯, একই এলাকার ছিড়াবাজু গ্রামের মোঃ রফিকুল ইসলামের কন্যা মোছাঃ শান্তা খাতুন ( ১৩) রোল-৭০, নিজপাড়া ইউনিয়নের দেবীপুর গ্রামের মোঃ জিয়ারুল ইসলামের কন্যা তানজিনা আখতার (১৪) রোল-(৫৭)।

মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৯টায় উপজেলার মরিচা ইউনিয়নের গোলাপগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়ে এক ঘটনা ঘটে। আহতরা সকলেই অষ্টম শ্রেণীর ক শাখার ছাত্রী।
Dinajpur Birganj Photo-01
আহত ছাত্রীর সহপাঠী প্রতিমা রায় জানান, সকাল সাড়ে ৯টায় প্রধান শিক্ষক মোঃ শহীদুল ইসলাম আমাদের বিজ্ঞান ক্লাশ নিতে আসেন। ক্লাসে এসে প্রথমে তিনি মমতাজ পারভীন বর্ষাকে  রাসায়নিক বিক্রিয়ার বিষয়ে লিখতে বলেন। সে না পারায় পরে শান্তা খাতুন এবং তানজিনা আখতার ডেকে তাদেরকে লিখতে বলেন। কিন্তু কেউ না পারায় স্যার ক্ষিপ্ত হয়ে হাতে থাকা লাঠি দিয়ে বেধড়ক পেটাতে থাকে। পরে তাদের চিৎকারে অন্যান্য শিক্ষকরা ছুটে আসে। পরে তাদের হাসপাতলে ভর্তি করা হয়।

হাসপাতালে আহত শান্তা খাতুন জানান, স্যার রাসায়নিক বিক্রিয়ার বিষয়ে লিখতে বলে। আমি না পারায় আমাকে এলোপাথারী মারধর করে। এ সময় আমি পড়ে যাই। সহপাঠিরা আমাকে তুলে বেঞ্চে শুইয়ে দেন। পড়ে আমাকে হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। আমি ব্যথায় পা নড়াতে পারছিন।

অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষক মোঃ শহীদুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, আমি তাদের সামান্য শাসন করেছি। দু একটা মার দিয়েছি। একজন পিতা হিসেবে কন্যাকে যে ভাবে শাসন করে বিষয়টি তদরুপ।

বিদ্যালয়ের সভাপতি হিমাংসু চন্দ্র চন্দ জানান, আমরা পরিচালনা পর্ষদ তাৎক্ষণিক ভাবে সিদ্ধান্ত নিয়ে তাকে সাময়িক ভাবে বরখাস্ত করেছি। পরে তদন্ত কমিটি গঠন করে তদন্ত সাপেক্ষে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার রাসেল মনজুর ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, প্রধান শিক্ষককে সাময়িক ভাবে বরখাস্ত সিদ্ধান্ত বিদ্যালয়ের সভাপতি আমাকে অবহিত করেছে। আমি ৫সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠনের পরামর্শ প্রদান করেছি। তদন্ত রিপোর্ট পাওয়ার পর তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
[ads1]
[ads2]

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য