imagesমো. জাকির হোসেনঃ লাগামহীনভাবে চলছে মোবাইল ফোনের নকল ব্যাটারীর জমজমাট ব্যবসা। প্রতিষ্ঠিত কোম্পানীর মোড়ক, লেবেল, স্টিকার ও আকৃতি হুবুহু রেখে বাজারজাত করা হচ্ছে নকল ব্যাটারী। এসব ব্যাটারী ব্যবহার করে প্রতারণার শিকার হচ্ছেন মোবাইল ফোন ব্যবহারকারীগণ। এনিয়ে লেখালেখি করেও বন্ধ হয়নি নকল ব্যাটারী ব্যবসা। মূলত প্রশাসনের নজরদারী না থাকায় নকল ব্যাটারীর উৎপাদন ও বাজারজাত বন্ধ হচ্ছে না বলে অভিযোগ মিলেছে।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, উত্তরাঞ্চলের বাণিজ্যিক শহর সৈয়দপুরে মোবাইল ফোন ব্যাটারীর ব্যাপক চাহিদা থাকায় প্রকৃত ডিলারশীপের আড়ালে প্রায় শতাধিক ব্যক্তি নিজেকে ব্যাটারীর ডিলার দাবি করে চুটিয়ে ব্যবসা করছেন। প্রতিদিন প্রায় দু’শতাধিক মোটর সাইকেলে নিজেদের উৎপাদিত নকল ব্যাটারী গোটা জেলা তথা পার্শ্ববর্তী দিনাজপুর, ঠাকুরগাঁও, পঞ্চগড়, রংপুর ও লালমনিরহাটে সরবরাহ করছেন। ঢাকা থেকে সরাসরি বা কুরিয়ার সার্ভিসের মাধ্যমে ওয়ান টাইম রেডিমেট ব্যাটারী পাইকারী দামে কিনে এনে প্রতিষ্ঠিত কোম্পানীর মোড়ক, লেবেল, স্টিকার ও আকৃতি হুবুহু রেখে বাজারজাত করছেন। এসব ব্যাটারী ব্যবহার করে প্রতারণার শিকার হচ্ছেন মোবাইল ফোন ব্যবহারকারীগণ।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুুক এক ব্যাটারী ব্যবসায়ী বলেন, দেশের নামকরা প্রতিষ্ঠানের ব্যাটারী ছাড়া মোবাইল ফোন ব্যবহারকারীরা ব্যাটারী কিনতে চায় না, তাই আমরা ঢাকা থেকে খোলা ব্যাটারী এনে বাসায় বসে স্টিকার, লেবেল ও মোড়ক করে বাজারে সরবরাহ করি। এতে লাভের পরিমাণ অনেক বেশি হওয়ায়, দিন দিন এ ব্যবসায় লোকজন বাড়ছে। এদিকে, প্রতারিত মোবাইল ফোন ব্যবহারকারীগণ জানান, আসল ব্যাটারী দীর্ঘদিন চললেও নকল ব্যাটারী একমাসের মধ্যে নষ্ট হয়ে যায়। ফলে বার বার ব্যাটারী কিনতে হয়। এতে আর্থিক ক্ষতির পাশাপাশি অনেক ভোগান্তি পোহাতে হয়। এ বিষয়ে তারা প্রশাসনের কড়া নজরদারী দাবি করেন ব্যবসায়ীরা।
[ads1]
[ads2]

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য