Thakurgaon mapনিজের মেয়েকে লুকিয়ে রেখে দুই ব্যক্তির নামে মানবপাচার মামলা করে নিজেই ফেঁসে গেছেন অলিয়ার রহমান। বুধবার সকালে মেয়ে আমেনাকে (২২) ঠাকুরগাঁও আদালতে হাজির করা হলে তিনি তার বাবা অলিয়ার রহমানের ষড়যন্ত্রের কথা আদালতকে জানান।

এর আগে মুন্সীগঞ্জ জেলার খালিস্ট মোড় থেকে আমেনাকে উদ্ধার করে বুধবার সকালে ঠাকুরগাঁও পৌঁছায় সদর থানার পুলিশ। এদিকে মানবপাচার মামলার আসামি হয়ে ভয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন ঢাকার বাসিন্দা নূরে আলম ও পঞ্চগড়ের বোদা উপজেলার জাহাঙ্গীর আলম।আমেনা পঞ্চগড়ের বোদা উপজেলার পাঠানপাড়া গ্রামের অলিয়ার রহমানের মেয়ে।

বুধবার সকালে আমেনাকে ঠাকুরগাঁও চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করা হলে তিনি জানান, তার বাবা তাকে ঢাকায় নূরে আলমের বাসায় গৃহকর্মীর কাজে দেন। কয়েক মাস কাজ করার পর তাকে বোদায় এনে বিয়ে দিয়ে দেন। কিছু দিন পর সংসার ভেঙে গেলে তাকে আবার নূরে আলমের বাসায় নিয়ে যান।

তার বাবার কথামতো তিনি গোপনে ওই বাসা থেকে বের হয়ে মুন্সীগঞ্জ খালিস্ট মোড় এলাকার এক বাড়িতে যান। পরে তার বাবা নূরে আলম ও গ্রামের বাড়ির প্রতিবেশী জাহাঙ্গীর আলমের নামে মানবপাচার মামলা করে তাদের কাছে ৩ লাখ টাকা দাবি করেন। তাকে কেউ অপহরণ বা পাচার করেননি। তার বাবাই এ ঘটনা সাজিয়েছেন।

ঠাকুরগাঁও থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা একেএম মেহেদী হাসান জানান, মামলার আসামিদের তথ্যানুসারে পুলিশ মুন্সীগঞ্জ খালিস্ট মোড় এলাকা থেকে মেয়েটিকে উদ্ধার করে ঠাকুরগাঁও থানায় নিয়ে আসে। এরপর মেয়েটি জবানবন্দি দিয়ে ঘটনার বিস্তারিত জানান।
[ads1]
[ads2]

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য