পাট চাষে আগ্রহ হারাচ্ছেফুলবাড়ী দিনাজপুর প্রতিনিধিঃ দিনাজপুরে ১৩টি উপজেলায় সোনালী আঁশ খ্যাত পাটের চাষ কমেছে।

চাষাবাদ নির্ভর দিনাজপুরের ১৩টি উপজেলায় একসময় উচু ও নিচু ভুমিতে পাটের চাষাবাদ করা হতো। পাট কেটে নেওয়ার পর কিছু জমিতে ধান রোপন করতেন চাষীরা।

কিন্তু গত কয়েক বছর আগে পাটের দাম কমে যাওয়ায় এই জনপদে সোনালী আঁশ খ্যাত এই পাট মানুষ বলতেন কৃষকের গলার ফাসঁ।

গত কয়েক বছর ধরে পাটের দাম অনেক বেড়ে যাওয়ার পরেও পাট চাষ যেন বাড়ছে না।  পাট কাটার পর এর প্রক্রিয়াজাতকরন যেমন, বহন করে পানিতে পচাঁনো এবং আঁশ ছড়ানো এবং রোদে শুকিয়ে  বিক্রিয় যোগ্য  করতে  চাষাবাদ ব্যায় বেড়ে যাওয়ায় কৃষকরা পাট চাষে আগ্রহ হারাতে থাকে। ফুলবাড়ী উপজেলার পার্শ্ববর্তী বিরামপুর উপজেলায় রয়েছে পাট ক্রয়ের সরকার অনুমোদিত বেশ কিছু আড়ৎ।

চাষীরা বলছেন, আগের মতো গ্রহস্থালির কাজে আর পাটের প্রয়োজন পড়ে না। তবে অর্থকরী ফসল চাষের বিবেচনায় নিয়ে কেউ কেউ এই পাট চাষ করছেন । বর্তমানে পাট চাষাবাদে খরচ বেড়ে গেছে এছাড়া ফলন আশানুরুপ হচ্ছে না।

তাই চাষীরা এই মৌসুমের বিকল্প ফসল চাষাবাদ করছেন। উপজেলা কৃষি দপ্তর চাষীদের পাট চাষে উৎসাহ দিয়েও তেমন সাড়া পাচ্ছেন না।

ফুলবাড়ী  উপজেলা কৃষি দপ্তর সুত্রে জানা যায় চলতি মৌসুমে দিনাজপুরের ১৩টি উপজেলায় পাট চাষ লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারন করা হয়েছিল ৭০০০ হেক্টর কিন্তু চাষাবাদ হয়েছে ৪০০০ হেক্টর।
[ads1]
[ads2]

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য