SAM_3506 copyকাশী কুমার দাস ॥ দিনাজপুরের জেলা প্রশাসক মীর খায়রুল আলম বলেছেন, একজন খেলায়াড়ের বড় সম্পদ হলো চর্চা ও প্রশিক্ষন। দিনাজপুরের ক্রীড়াঙ্গনের একটি ঐতিহ্য রয়েছে। তা তোমাদের ধরে রাখতে হবে উন্নত মানের খেলা উপহার দিয়ে।

বৃহস্পতিবার বড়ময়দানস্থ ক্রীড়া পল্লী সংলগ্ন মাঠে জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ এর ব্যবস্থাপনায় ও জেলা ক্রীড়া সংস্থা দিনাজপুর-এর সহযোগিতায় অনুর্ধ্ব-১৮ বৎসর অনাবাসিক ১৫দিনব্যাপী (কাবাডী, বাস্কেট বল ও সাইক্লিনিং) প্রশিক্ষন কর্মসূচীর সমাপনী অনুষ্ঠানে তিনি প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথাগুলো বলেন।

অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) আবু রায়হান মিয়ার সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন পুলিশ সুপার মোঃ রুহুল আমিন ও দিনাজপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি চিত্ত ঘোষ। স্বাগত বক্তব্য রাখেন জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক সুব্রত মজুমদার ডলার।

শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন জাতীয় প্রশিক্ষক মোঃ সাইদুর রহমান ও জাতীয় দলের কোচ আব্দুল জলিল। সঞ্চালকের দায়িত্ব পালন করেন সৈয়দ আজাদুর রহমান বিপুর। বক্তারা বলেন, খেলাধূলার মাধ্যমে একটি পরিচ্ছন্ন সমাজ গড়তে প্রশিক্ষণের বিকল্প নেই। সম্মিলিত প্রচেষ্টায় দিনাজপুরের ক্রীড়া অঙ্গণে উন্নয়ন ঘটছে।

দিনাজপুরের খেলাধুলার মান উন্নয়নে হুইপ ইকবালুর রহিম এমপি’র যথেষ্ট অবদান রয়েছে। একসময়কার বাঙ্গালীর ঐতিহ্য খেলা কাবাডী আজ বিলুপ্তির পথে। তাকে রক্ষা করার বা ঐতিহ্য ফিরিয়ে আনতে তরুন খেলোয়াড়দের এগিয়ে আসতে হবে। প্রধান অতিথি, বিশেষ অতিথিদ্বয় প্রশিক্ষণার্থীদের মাঝে সনদপত্র বিতরণ করেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন জেলা ক্রীড়া সংস্থার সহ-সভাপতি মোঃ আজিজুর রহমান, সহ-সম্পাদক মোঃ আসলাম হোসেন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান চৌধুরী, মিজানুর রহমান পাটোয়ারী, কোষাধ্যক্ষ জাহেদী পারভেজ অপূর্ব, মহিলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক জিনাত আরা মিলি, নির্বাহী সদস্য মোস্তাক আহম্মেদ, রহমত আলী, অরুন সরকার ও সমিরন ঘোষ।
[ads1]
[ads2]

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য